মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

ডিজিটাল বিপ্লবের পথ ধরে একবিংশ শতাব্দির ঊষালগ্ন থেকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে এক গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার হয়ে উঠে। বাংলাদেশ তার উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা কে এগিয়ে নিতে তাই ডিজিটাল বিপ্লবে সামিল হওয়া এবং আইসিটির ব্যবহার কে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়। এর প্রতিফলন দেখা যায় ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাচন প্রাক্কালে। ২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা "রূপকল্প ২০২১" এর ঘোষণা দেন। এর মূল উপজীব্য করা হয় ডিজিটাল বাংলাদেশকে। গনতন্ত্র, সুশাসন, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, ন্যায়বিচার ও দুর্নীতিমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠার অঙ্গিকারকে এগিয়ে নেয়াই ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নের মূল লক্ষ্য।

 

উপজেলা পর্যায়ে সকল সরকারি দপ্তর/প্রতিষ্ঠানে আইসিটির ব্যবহার ও প্রয়োগ নিশ্চিতকরণ ও সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে ই-গভর্নেন্স বাস্তবায়ন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থাপিত শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব কেন্দ্রিক গঠিত আইসিটি ক্লাব এর সদস্যদের আইসিটিতে সচেতনতা বৃদ্ধি ও প্রয়োজনীয় পরামর্শ সেবা প্রদান এবং ক্লাবের সদস্যদের আইসিটি বিষয়ে প্রশিক্ষণ আয়োজনের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং -এ উদ্বুদ্ধকরণ।

 

এছাড়াও ই-গভরনেন্স প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সকল ধরনের সরকারী সেবাসমূহ এক নিমিষেই জনগনের দোরগোড়ায় পোঁছে দেয়ার মাধ্যমে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দুর্নীতিমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠা করা।

২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি সূচকসমূহে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য অর্জন, ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত রাষ্ট্রে পদার্পণ এবং জ্ঞ্যনভিত্তিক টেকসই অর্থনীতির রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করাই ডিজিটাল বাংলাদেশের মূল লক্ষ্য। 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter